• Home
  • ব্লগ
  • বাংলাসাহিত্যের কালজয়ী উপন্যাস তুলে ধরা হলো — পর্ব ২

বাংলাসাহিত্যের কালজয়ী উপন্যাস তুলে ধরা হলো — পর্ব ২

বাংলাসাহিত্যের কালজয়ী 👉দেবদাসঃ এখন পর্যন্ত রোম্যান্টিক উপন্যাসের কথা বললে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর দেবদাস উপন্যাসের কথাই মাথায় প্রথমে আসবে।দেবদাসের বিরহভরা এক …

বাংলাসাহিত্যের কালজয়ী

👉দেবদাসঃ

এখন পর্যন্ত রোম্যান্টিক উপন্যাসের কথা বললে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর দেবদাস উপন্যাসের কথাই মাথায় প্রথমে আসবে।দেবদাসের বিরহভরা এক প্রেমের অমর কাহিনী এই উপন্যাসটি।

👉পরিনীতাঃ

পরিনীতা শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর একটি রোম্যান্টিক উপন্যাস।শরতচন্দ্রের লেখার ধারা অনুযায়ী এই উপন্যাসের প্রেমের মাঝেও আছে বিরহ-বেদনা!

👉মাঃ

আনিসুল হকের লেখা মা উপন্যাসটির সাথে অন্য কোনো বইয়ের তুলনা হয় না।এটি প্রকাশিত হয় ২০০৩ সালে।২০২০ সালে এটির ১০০ তম মুদ্রণ প্রকাশিত হয়েছে।

👉একাত্তরের চিঠিঃ

মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বজনদে কাছে লেখা ৮৬ টি চিঠি নিয়ে প্রকাশ করা হয় একাত্তরের চিঠি বইটি।গ্রামীন ফোন এবং প্রথম আলোর উদ্যোগে বইটি প্রকাশ করা হয়।

👉শুকান্ত ১-৩ঃ

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর লেখা শুকান্ত উপন্যাসটি ৩ খন্ডে প্রকাশিত হয়েছিল।শুকান্তের জীবননাট্যকে নিয়েই লেখা এই উপন্যাস তিনটি।

👉ওঙ্কারঃ

আহমদ ছফা-র লেখা ওঙ্কার বই এক বোবা মেয়েকে কীভাবে তার স্বামী ধীরে ধীরে আবিষ্কার করে তার হৃদরস্পর্শী গল্প ফুটে উঠেছে।এই উপন্যাসের একটি বড় দিক হচ্ছে ভাষা আন্দলন।ছোট্ট এই বইটিতে আছে জীবনের কঠিন(!) সব সত্য।

👉অবরোধ বাসিনীঃ

নারীজাগণ নিয়ে লেখা বেগম রোকেয়ার এই বইটি প্রকাশিত হয় ১৯৩১ সালে।বিশেষত তখনকার যুগে সমাজে মুসলমান মেয়েদের সমস্যাগুলো তুলে ধরেছেন তিনি।

👉আমি বীরাঙ্গনা বলছিঃ

দুই খন্ডে ৭ জন বীরাঙ্গনার জীবননাট্যের গল্প লিখেছেন লেখিকা।কিছু কিছু বই থাকে যেগুলো একবার পড়লে আর দ্বিতীয়বার পড়ার সাহস হয় না।এই বইটিও তার একটি।

👉ঘরে বাইরেঃ

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের এর একটি ত্রিকোণাকার প্রেমের উপন্যাস এটি।বিমলা -র ঘরের স্বামীর প্রতি এবং বাইরের স্বামীবন্ধুর প্রতি ভালোবাসার কাহিনী।এই তিনজনের আত্মকথা নিয়েই লেখা বইটি।

👉যোগাযোগঃ

যোগাযোগ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি রোম্যান্টিক জনরার উপন্যাস।এই উপন্যাসের কুমুদিনী এবং মধুসূদন দুইজনেরই প্রায়শ্চিত্ত যেমন কঠোর তেমনি দুঃখাত্মক।

👉দত্তাঃ

১৯৯৮ সালে ২৩।শরৎচন্দ্রের দত্তা উপন্যাসটি প্রকাশিত হয়।এটি একটি রোম্যান্টিক জননার উপন্যাস।

👉গৃহদাহঃ

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর সামাজিক এবং জনরার উপন্যাস গৃহদাহ।এটি ১৯৩০ সালে প্রকাশিত হয়।

👉সবিনয় নিবেদনঃ

বুদ্ধদেব গুহ-র উপন্যাস সবিনয় নিবেদন।শুধুমাত্র চিঠি দিয়েই লেখা পুরো উপন্যাসটি।চিঠির মাধ্যমেই প্রতিটি চরিত্রের গতিময়তা ফুটিয়ে তুলেছেন লেখক।

👉উত্তরাধিকারঃ

সমরেশ মজুমদারের লেখা উত্তরাধিকার উপন্যাসটি অনিমেষ নামের এক কিশোরের জীবনের গল্প।মা হারা এই কিশোর বড় হয় তার দাদুর কাছে।তৎকালীন সময়ের সামাজিক এবং রাজনৈতিক প্রকৃতিও ফুটে উঠেছে এই উপন্যাসে।

👉কালবেলাঃ

সমরেশ মজুমদারের অনিমেষ সিরিজের দ্বিতীয় খন্ড।কলকাতায় এসে অ অনিমেষের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়া এবং প্রেমে পড়ার কাহিনীই তুলে ধরেছেন লেখক এই উপন্যাসে।

👉কালপুরুষঃ

সমরেশ মজুমদারের অনিমেষ সিরিজের শেষ খন্ড এটি।এই গল্পের নায়ক অনিমেষের ছেলে।তার জীবনের সাথে রাজনীতি এবং মানবসেবা  কীভাবে জড়িয়ে যায় সেটাই উঠে এসেছে এই উপন্যাসে।

👉হিরে বসানো সোনার ফুলঃ একবিংশ শতাব্দির শুরুতে নারী অধিকার আদায়ের কথাই আছে সমরেশ মজুমদারের  এই উপন্যাসে।তিতির এবং রঞ্জনার আত্মসম্মানের লড়াইয়ের কাহিনী হিরে বসানো সোনার ফুল।

👉পদ্মরাগঃবেগম রোকেয়ার পদ্মরাগ উপন্যাসটি রচনা করেন ১৯০২ সালে।তবে এটি প্রকাশিত হয় ১৯২৪ সালে।

👉একাত্তরের দিনগুলিঃ

মুক্তিযুদ্ধের সময় জাহানারা ইমামের লেখা দিনলিপিই বই আকারে প্রকাশিত হয়েছি পরবর্তীতে।এই বইয়ে উঠে এসেছে মুক্তিযুদ্ধ কালীন সময়ের বাংলার করুণ ইতিহাস।

👉দীপু নাম্বার টুঃ মুহম্মদ জাফর ইকবালের কিশোর উপন্যাস দীপু নাম্বার টু।দীপু এবং তার বন্ধুদের দুঃসাহসীক এডভেঞ্চারের গল্প দীপু নাম্বার টু।

👉আমার বন্ধু রাশেদঃ এটি মুক্তিযুদ্ধের পরিপ্রেক্ষিতে লেখা মুহম্মদ জাফর ইকবালের লেখা একটি কিশোর উপন্যাস।দেশকে ভালোবেসে এক কিশোরের আত্মত্যাগের গল্প,আরেক কিশোর বন্ধু হারানোর গল্প এটি।

👉জোছনা ও জননীর গল্পঃ মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষিতে লেখা হুমায়ূন আহমেদের এই বইটি প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে।

👉অর্ধেক নারী অর্ধেক ঈশ্বরীঃ আহমদ ছফার একটি রোম্যান্টিক জনরার বই এটি।এই বইয়ে নারী চরিত্রকে জীবন্তভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন লেখক।

👉শেষ বিকেলের মেয়েঃ এটি জহির রায়হানের প্রথম উপন্যাস।এটি প্রকাশিত হয় ১৯৬০ সালে।

👉লালসালুঃ

সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ এর লালসালু উউপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৪৮ সালে।এটি এখন উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের বাংলা সাহিত্য বইয়ে জায়গা করে নিয়েছে।

👉তেইশ নাম্বার তৈলচিত্রঃ এটি আলাউদ্দিন আল আজাদের প্রথম উপন্যাস।১৯৬০ সালে পত্রিকায় প্রকাশিত হয় এটি।

👉 সূর্য দীঘল বাড়িঃ আবু ইসহাকের লেখা সূর্য দীঘর বাড়ি উপিন্যাসটি নারীর গতানুগতিক নিয়মের বাইরে গিয়ে প্রথা ভাঙার গল্প।

👉কালো বরফঃ মাহমুদুল হকের লেখা কালো বরফ বইটিতে দেশভাগের চিত্র ফুটে উঠেছে।

👉গাভী বৃত্তান্তঃ ১৯৯৫ সালে প্রকাশিত হয় আহমদ ছফার গাভী বৃত্তান্ত উপন্যাসটি।এটি একটি পর্যালোচনা মূলক এবং বাস্তবতাসম্পুর্ণ উপন্যাস।

👉শবনমঃ সৈয়দ মুজতবা আলীর একটি কালজয়ী প্রেমের উপন্যাস শবনম।


Popular Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.