• Home
  • লেখক
  • জাহানারা ইমাম (৩ মে ১৯২৯ – ২৬ জুন ১৯৯৪)

জাহানারা ইমাম (৩ মে ১৯২৯ – ২৬ জুন ১৯৯৪)

জাহানারা ইমাম    জাহানারা ইমাম বাংলাদেশি লেখিকা, কথাসাহিত্যক, শিক্ষাবিদ এবং একাত্তরের ঘাতক-দালাল বিরোধী আন্দোলনের নেত্রী ছিলেন । এই মহিয়সী নারী […]

জাহানারা ইমাম

জাহানারা ইমাম

   জাহানারা ইমাম বাংলাদেশি লেখিকা, কথাসাহিত্যক, শিক্ষাবিদ এবং একাত্তরের ঘাতক-দালাল বিরোধী আন্দোলনের নেত্রী ছিলেন । এই মহিয়সী নারী ‘শহীদ জননী’ হিসেবেই অধিক পরিচিত । তিনি ১৯২৯ সালের ৩রা মে মুর্শিদাবাদের (বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গ) সুন্দরপুর গ্রামে রক্ষণশীল বাঙালি মুসলমান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন । তাঁর ডাকনাম ছিল ‘জুডু’ । জাহানারা ইমামের পিতা সৈয়দ আব্দুল আলী ছিলেন ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট । মাতা সৈয়দা হামিদা বেগম ।

জাহানারা ইমাম ১৯৪২ সালে মাধ্যমিক পাশ করেন । ১৯৪৪ সালে রংপুর কারমাইকেল কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন এবং ১৯৪৫ সালে কলকাতার লেডি ব্রেবোর্ণ কলেজে ভর্তি হন । তিনি লেডি ব্রেবোর্ণ কলেজ (কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়) থেকে বি.এ পাশ করেন ১৯৪৭ সালে । ১৯৬০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.এড ডিগ্রি অর্জন করেন । যুক্তরাষ্ট্র থেকে সার্টিফিকেট ইন এডুকেশন ডিগ্রি অর্জন করেন ১৯৬৪ সালে । যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে ১৯৬৫ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় এম.এ পাশ করেন ।

 শিক্ষক হিসাবে তাঁর কর্মময় জীবনের প্রথম কাল কাটে ময়মনসিংহ শহরে । সেখানে ১৯৪৮ থেকে ১৯৪৯ সাল পর্যন্ত তিনি বিদ্যাময়ী বালিকা বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন । এরপর ঢাকায় এসে ১৯৫২ থেকে ১৯৬০ সাল পর্যন্ত তিনি সিদ্ধেশ্বরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন । পরবর্তীতে তিনি ১৯৬২ থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত বুলবুল একাডেমি কিন্ডারগার্টেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক এবং ১৯৬৬ থেকে ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত ঢাকা টিচার্স ট্রেনিং কলেজের অধ্যাপক হিসেবে নিজের কর্মজীবন অতিবাহিত করেন । তিনি কিছুদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটেও খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে কাজ করেছিলেন ।

জাহানারা ইমাম

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে তাঁর প্রথম সন্তান শাফী ইমাম রুমী যোগদান করেন । রুমী ও তাঁর সহযোদ্ধাদের বিভিন্ন অপারেশনে জাহানারা ইমাম সহযোগিতা করেন । এছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয়, খাদ্যের যোগান, গাড়িতে অস্ত্র আনা-নেওয়া এবং তা যুদ্ধক্ষেত্রে পৌঁছে দেওয়া, খবর আদান-প্রদান ইত্যাদি কর্মকাণ্ডে তিনি সর্বান্তকরণে অংশগ্রহণ করেন । কয়েকটি সফল গেরিলা অপারেশনের পর রুমী পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হাতে গ্রেফতার হন এবং পরবর্তীতে নির্যাতনের ফলে মৃত্যুবরণ করেন। এছাড়া যুদ্ধের সময় তাঁর স্বামী মুক্তিযুদ্ধের সহযোগী শরীফ ইমামও মৃত্যুবরণ করেন। বিজয় লাভের পর রুমীর বন্ধুরা রুমীর মা জাহানারা ইমামকে সকল মুক্তিযোদ্ধার মা হিসেবে বরণ করে নেন । শহীদ রুমীর  হওয়ার সূত্রেই তিনি শহীদ জননীর মযার্দায় ভূষিত হন ।

১৯৯২ সালের ১৯ জানুয়ারি জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে ১০১ সদস্যবিশিষ্ট একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি গঠিত হয় । তিনি এর আহ্বায়ক হন । এর পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী প্রতিরোধ মঞ্চ, ১৪টি ছাত্র সংগঠন, প্রধান প্রধান রাজনৈতিক জোট, শ্রমিক-কৃষক-নারী এবং সাংস্কৃতিক জোটসহ ৭০টি সংগঠনের সমন্বয়ে পরবর্তীতে ১১ ফেব্রুয়ারি ১৯৯২ ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল জাতীয় সমন্বয় কমিটি’ গঠিত হয় । সর্বসম্মতিক্রমে এর আহ্বায়ক নির্বাচিত হন জাহানারা ইমাম ।

লাখো জনতার পদযাত্রার মাধ্যমে জাহানারা ইমাম ১২ এপ্রিল ১৯৯২ সালে গণআদালতের রায় কার্যকর করার দাবিসংবলিত স্মারকলিপি নিয়ে জাতীয় সংসদের স্পীকার, প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধীদলীয় নেত্রীর কাছে পেশ করেন । ১০০ জন সাংসদ গণআদালতের রায়ের পক্ষে সমর্থন ঘোষণা করেন । ২৮ মার্চ ১৯৯৩ সালে নির্মূল কমিটির সমাবেশে পুলিশ বাহিনী হামলা চালায় । পুলিশের লাঠিচার্জে আহত হন জাহানারা ইমাম । দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এমনকি বিদেশেও গঠিত হয় নির্মূল কমিটি এবং শুরু হয় ব্যাপক আন্দোলন । পত্র-পত্রিকায় সংবাদ শিরোনাম হয়ে উঠলে আন্তর্জাতিক মহলেও ব্যাপক পরিচিতি অর্জন করেন জাহানারা ইমাম । গোলাম আযমসহ একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবির আন্দোলনকে সমর্থন দেয় ইউরোপীয় পার্লামেন্ট । আন্দোলন ব্যাপকতা লাভ করে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ।

২৬ মার্চ ১৯৯৩ সালে স্বাধীনতা দিবসে গণআদালত বার্ষিকীতে জাহানারা ইমামের নেত্রত্বে গণতদন্ত কমিটি ঘোষিত হয় এবং আরো আটজন যুদ্ধাপরাধীর নাম ঘোষণা করা হয় । ২৬ মার্চ ১৯৯৪ সালে স্বাধীনতা দিবসে গণআদালতের ২য় বার্ষিকীতে গণতদন্ত কমিশনের চেয়ারম্যান কবি বেগম সুফিয়া কামাল ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটের সামনে রাজপথের বিশাল জনসমাবেশে জাহানারা ইমামের হাতে জাতীয় গণতদন্ত কমিশনের রিপোর্ট হস্তান্তর করেন ।

আশির দশকের শুরুতে, ১৯৮২ সালে জাহানারা ইমাম মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হন । অসুস্থার জন্য তাঁকে ১৯৯৪ সালের ২ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয় ।

১৯৯৪ সালের ২৬ জুন বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টায় মিশিগানের ডেট্টয়েট নগরীর সাইনাই হাসপাতালে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ৬৫ বছর বয়সে এই শহীদ জননী মৃত্যুবরণ করেন । তাঁকে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী ও মুক্তিযোদ্ধা গোরস্থানে সমাহিত করা হয় ।

জাহানারা ইমাম

শিশু সাহিত্য

·         গজকচ্ছপ (১৯৬৭)

·         সাতটি তারার ঝিকিমিকি (১৯৭৩)

·         বিদায় দে মা ঘুরে আসি (১৯৮৯)

অনুবাদ গ্রন্থ

·         জাগ্রত ধরিত্রী (১৯৬৮)

·         তেপান্তরের ছোট্ট শহর (১৯৭১)

·         নদীর তীরে ফুলের মেলা (১৯৬৬)

মুক্তিযুদ্ধ

·         বীরশ্রেষ্ঠ (১৯৮৫)

·         একাত্তরের দিনগুলি (১৯৮৬)

জাহানারা ইমাম

 অন্যান্য 

·         অন্য জীবন (১৯৮৫)

·         জীবন মৃত্যু (১৯৮৮)

·         শেক্সপীয়রের ট্রাজেডি (১৯৮৯)

·         নি সঙ্গ পাইন (১৯৯০)

·         বুকের ভিতরে আগুন (১৯৯০)

·         নাটকের অবসান (১৯৯০)

·         দুই মেরু (১৯৯০)

·         ক্যান্সারের সঙ্গে বসবাস (১৯৯১)

·         প্রবাসের দিনগুলি (১৯৯২)

·         বাংলা উচ্চারণ অভিধান (যৌথভাবে সম্পাদিত) (১৩৭৫)

·         An Introduction to Bengali Language and Literature (Part-I)(1983)

পুরস্কার ও সম্মাননা

·         বাংলাদেশ লেখিকা সংঘ সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৮)

·         কমর মুশতরী সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৮)

·         বাংলা একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার (১৯৯১)

·         আজকের কাগজ হতে শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধা পুরস্কার (বাংলা ১৪০১ সনে)

·         নারী গ্রন্থ প্রবর্তনা (১৯৯৪)

·         স্বাধীনতা পদক (১৯৯৭)

·         রোকেয়া পদক (১৯৯৮)

·         অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার (২০০১)

·         ইউনিভার্সাল শিল্পী গোষ্ঠী পুরস্কার (২০০১)

·         শাপলা ইয়ূথ ফোর্স

·         কারমাইকেল কলেজ গুণীজন সম্মাননা

·         মাস্টারদা সূর্যসেন পদক

·         মুক্তিযুদ্ধ উৎসব-ত্রিপুরা সাংগঠনিক কমিটি

·         বাংলাদেশ নারী পরিষদ

·         রোটারাক্ট ক্লাব অব স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ

·         বিশ্ববিদ্যালয় শিল্পী গোষ্ঠী পুরস্কার (২০০১)

·         বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংঘ

·         মুক্তিযুদ্ধের চেতনা

তথ্যসূত্রউইকিপিডিয়া

আরো জানতে আমাদের কন্ঠনীড়ে সাইটে থাকুন

Popular Posts

1 Comments Text
  • Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.