• Home
  • ব্লগ
  • কমিউনিকেশন স্কিল বাড়ানোর উপায়

কমিউনিকেশন স্কিল বাড়ানোর উপায়

আদিম যুগে মানুষ যখন কথা পর্যন্ত বলতে পারত না তখনও তারা একে অপরের সাথে কমিউনিকেশন করত ইশারায় বা অন্যান্য উপায়ে […]

আদিম যুগে মানুষ যখন কথা পর্যন্ত বলতে পারত না তখনও তারা একে অপরের সাথে কমিউনিকেশন করত ইশারায় বা অন্যান্য উপায়ে । ধীরে ধীরে মানুষের পরিবর্তন হয়েছে এবং মানুষের কমিউনিকেশন স্কিল উন্নত থেকে উন্নততর হয়েছে ।

এখনো অনেক মানুষ আছে যারা অন্যান্য মানুষের সাথে ভালোভাবে কমিউনিকেশন তৈরি করতে পারে না । তাই মানুষের সাথে কমিউনিকেশন স্কিল বাড়ানোর উপায় ঠিকভাবে না জানলে যুগের সাথে চলা যায় না , পিছিয়ে পড়তে হয়। অনেক কঠিন কঠিন কাজ একটু মিষ্টি কথা দিয়েই সম্পন্ন করা যায় । যার যত কমিউনিকেশন স্কিল ভালো সে ততই যুগপোযোগী এবং সবার প্রিয় হয়ে ওঠে ।

ইমেজ সোর্সঃ উইকিপিডিয়া

ধরো তুমি কোনো ইন্টারভিউ দিতে যাচ্ছো কিংবা বিশেষ কোনো মিটিংয়ে যাচ্ছো সেখানে যদি তোমার কমিউনিকেশন স্কিল খারাপ হয় তাহলে তুমি অনেক পিছিয়ে পড়বে । কথায় আছে,

“First impression is the last impression”

তাই তোমার কমিউনিকেশন স্কিল আজ থেকেই উন্নত করো আর হয়ে ওঠো যুগপোযোগী , সকলের প্রিয় এবং জীবনে অর্জন করো তোমার সফলতা ।

এসো দেখে নিই কমিউনিকেশন স্কিল বাড়ানোর উপায় —–

🔷 মনযোগ দিয়ে সামনের ব্যক্তির কথা শোনো :- সবাই বলতে ভালোবাসে, কিন্তু কেউ সামনের ব্যক্তির কথা শুনতে চায়না । এটা একদম ঠিক নয় যদি অপর ব্যক্তির কথা না শোনো নিজেই বলে যাও তাহলে সামনের ব্যক্তির তোমার প্রতি এক বিরুপ মনোভাব সৃষ্টি হবে এবং তোমার প্রতি বিরক্তি তৈরি হবে । আর তুমি যদি সামনের ব্যক্তির কথা মনোযোগ সহকারে শোনো তাহলে সামনের ব্যক্তি তোমাকে পছন্দ করতে শুরু করবে এবং তোমার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনবে।

🔷কথা বলার সময় বডি ল্যাঙ্গুয়েজ ঠিক রাখো :- কথা বলার সময় তোমার বডি ল্যাঙ্গুয়েজ বলে দেবে তোমার কমিউনিকেশন স্কিল কতটা ভালো । শুধু কথা বলার পাশাপাশি হাতের ভঙ্গিমা , আই কন্টাক্ট ও শরীরের বিভিন্ন ভঙ্গিমা তোমার কমিউনিকেশন স্কিলকে অনেকটাই উৎকৃষ্ট করে তুলবে । তাই কথা বলার পাশাপাশি সদার্থক বডি ল্যাঙ্গুয়েজ আবশ্যিক।

🔷সামনের ব্যক্তির কথা যে তুমি শুনছো , কথার মাঝেই তার রেসপন্স করো :- যখন তুমি সামনের কোনো ব্যক্তির কথা শুনছ তখন শুধুমাত্র কথা না শুনে শোনার পাশাপাশি মাঝে মাঝে হ্যাঁ, না বা মাথা নাড়িয়ে রেসপন্স করো। এতে সামনের উদ্দিষ্ট ব্যক্তির মনে হবে যে তুমি তার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনছো এবং তোমার প্রতি তার সদার্থক মনোভাব চলে আসবে । তোমাকে সে গুরুত্ব দিতে শুরু করবে।

ইমেজ সোর্সঃ গুগল

🔷 দ্রুত কথা না বলে ধীরে ধীরে বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করো :- যে কোনো কথাকে খুব দ্রুত না বলে সেটাকে একটু ধীরে ধীরে বুঝিয়ে বলতে শেখো । তাহলে সামনের ব্যক্তি তোমার কথা খুব ভালো বুঝতে পারবে এবং তোমার মধ্যে ইন্টারেস্ট খুঁজে পাবে । আর তুমি যদি কোনো কথা দ্রুত বলো তাহলে হয়তো তোমার কথা সে ভালোভাবে বুঝতে পারবে না অথবা ভুল বুঝবে , তাতে তোমার প্রতি তার ইন্টারেস্ট হারিয়ে যাবে এবং সে তোমাকে অ্যাভোয়েড করা শুরু করবে।

✒বনলতা

শেক্সপিয়ারের উক্তি পড়ুন


Popular Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.